1. [email protected] : admins :
  2. [email protected] : Kanon Badsha : Kanon Badsha
  3. [email protected] : Nayeem Sajal : Nayeem Sajal
  4. [email protected] : News Editir : News Editir
শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কিশোরী গণধর্ষণের চাঞ্চল্যকর মামলার পলাতক আসামী সিফাত উল্লাহ’কে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১ ঈদ ঘিরে জঙ্গি তৎপরতার আগাম খবর নেই: ডিএমপি কমিশনার নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছেন মানুষ, ভোগান্তিও কম নয় সৌদি আরবে সুমাইয়া রেস্টুরেন্টের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া অনুষ্ঠিত নোয়াখালী জার্নালিস্ট ফোরাম এনজেএফ ঢাকার প্রতিবাদ সেনবাগের মহিদীপুরে ৪ হাজার নারী পুরুষ পেলেন ঈদ উপহার বুয়েটে ছাত্রলীগ নেতা রাব্বীকে হলের সিট ফিরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে দুর্ধর্ষ ডাকাতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত শামীম ডাকাত’কে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৩ কমলাপুরে ঘরমুখো মানুষের ভিড় সেনবাগ প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

বাকেরগঞ্জে জালিয়াতি করায় কেন্দ্র সচিবকে বহিষ্কার

  • আপডেট সময় বুধবার, ৩০ আগস্ট, ২০২৩

মোঃ বশির আহাম্মেদ:-
বাকেরগঞ্জে আলিম পরীক্ষায় জালিয়াতি করে অনিয়মিতদের প্রশ্নপত্রে নিয়মিতদের পরীক্ষা নেওয়ার অভিযোগ উঠছে বাকেরগঞ্জ ইসলামীয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও কেন্দ্র সচিব শফিকুর রহমানের বিরুদ্ধে। রোববার নাজমুল আলম সিদ্দিকি মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ইংরেজি প্রথমপত্র পরীক্ষায় এ ঘটনা ঘটে। এতে অত্র কেন্দ্রের ২৭৩ পরীক্ষার্থী বিপাকে পড়েন। যদিও একদিন পর এ ঘটনা জানাজানি হলে কেন্দ্র সচিবকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেন ইউএনও। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সজল চন্দ্র শীল জানান, এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় নাজমুল আলম সিদ্দিকি কেন্দ্রে মাদ্রাসা বোর্ডের ইংরেজি প্রথমপত্র পরীক্ষায় দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে কেন্দ্র সচিব শফিকুর রহমানকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি বোর্ডকে অবগত করা হয়েছে। বোর্ডের সিদ্ধান্ত মোতাবেক কেন্দ্র সচিবের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নাম না প্রকাশের শর্তে একাধিক পরীক্ষার্থী অভিযোগ করেন, কেন্দ্র সচিবের কারণে আমরা এ ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হয়েছি। প্রশ্নপত্র উল্টে যাওয়ায় বেশিরভাগ পরীক্ষার্থী অকৃতকার্য হবে। পরীক্ষা বাতিল করে নতুন করে পরীক্ষা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন পরীক্ষার্থীরা। তবে একাধিক সূত্র বলছে, ইসলামীয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান তার নিজ প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষার্থীদের সুবিধা দিতে একই প্রশ্নপ্রত্রে পরীক্ষা নিচ্ছেন। তার নিজ প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষার্থীদের সুবিধা দিতে গিয়ে আরও ১১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরীক্ষার্থীদের ক্ষতি করছেন। এতে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া উচিত ছিল। এ বিষয়ে জানতে কেন্দ্র সচিব শফিকুর রহমানের মোবাইলে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি। তবে এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তা তপন কুমার দাস জানান, এটা ভুলক্রমে হতে পারে। যদি এ ঘটনা তিনি ইচ্ছে করে করেন তার প্রমাণ মিললে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2023 Somoyexpress.News
Theme Customized By BreakingNews