1. [email protected] : admins :
  2. [email protected] : Kanon Badsha : Kanon Badsha
  3. [email protected] : Nayeem Sajal : Nayeem Sajal
  4. [email protected] : News Editir : News Editir
শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১:১১ অপরাহ্ন

বাকেরগঞ্জে পরিত্যক্ত ভবনে চলছে সরকারি ৬ দপ্তর যেকোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা

  • আপডেট সময় শনিবার, ১৯ আগস্ট, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদন :- বাকেরগঞ্জ উপজেলায় স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা উপজেলা প্রশাসনিক ভবনে ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন ৬টি সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এর আগে ২০২১ সালে উপজেলা প্রশাসনের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে ৬ কোটি ২২ লাখ টাকা বরাদ্দে নতুন ভবন নির্মাণ বাস্তবায়নের দায়িত্ব পায় এলজিইডি প্রকৌশলী।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজান এর হস্তক্ষেপে আমের বাগান নিধন করে পরিকল্পনা ছাড়াই নতুন ভবন নির্মাণের জন্য স্থান নির্ধারণ করা হলেও জমি সংকটের কারণে ওই নতুন ভবন নির্মাণের কার্যা আদেশ বাতিল করা হয়। স্থান নির্ধারণ করে নতুন ভবনের কাজ শুরু করতে না পারায় ঐ ভবনটির আর নির্মাণ হয়নি।

এখন বাধ্য হয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এখানে কাজ করতে হচ্ছে ঝুকি নিয়ে। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে জানান কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

সরেজমিন ১৭মে দেখা যায়, ছাদ ও দেওয়ালের বিভিন্ন স্থানে ফাটল ধরেছে। সেই ফাটল দিয়ে একটু বৃষ্টি হলেই অফিস কক্ষগুলোর মধ্যে চলে আসে বৃষ্টির পানি। পলেস্তারা খসে মরিচা পড়া রড বেরিয়ে আছে। বর্ষা মৌসুমে ছাদ চুইয়ে আসার পানির দাগ চোখে পড়ে। যখন তখন পলেস্তারা খসে পড়ে কয়েকজন আহত হয়েছেন।

উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসারের কার্যালয়, উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসারের কার্যালয়, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয়, উপজেলা এলজিডি প্রকৌশলী কার্যালয়, উপজেলা সমবায় কার্যালয়, উপজেলা সমাজসেবা অফিসারের কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মাথায় ছাদ থেকে পলেস্তারা খসে পড়ার ভয় নিয়ে দাপ্তরিক কার্যক্রম চালাচ্ছেন। এমনকি এইসব প্রতিষ্ঠানে সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষ মাঝেমধ্যে পলেস্তারা খসে পড়ে আহত হয়েছেন।

উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের একাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী জানান, ২০২২ সালে অফিস চলাকালে ছাদ থেকে পলেস্তারা খসে পড়ে চেয়ার ও টেবিল ভেঙে যায়। তবে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ওই সময় কক্ষে না থাকায় বড় ধরনের কোনো ক্ষতি হয়নি।

উপজেলা প্রকৌশলীর দপ্তর সূত্র জানায়, ১৯৮২ সালে উপজেলার প্রশাসনিক এই ভবনটি নির্মিত হয়। ১৯৮২ সালের ৭ নভেম্বর তৎকালীন মন্ত্রী এজেএম ওবায়দুল্লাহ খান ভবনটি উদ্বোধন করেন। ৪১ বছর আগের তৈরি ভবনটি ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সজল চন্দ্র শীল জানান, উপজেলা প্রশাসনিক ঐ ভবনে সরকারি ৬ টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। পরিত্যক্ত এ ভবনটির অবস্থা খুবই খারাপ। এমনকি তার শৌচাগারও ব্যবহারের অনুপযোগী। বাধ্য হয়ে দূরে সরকারি অন্য অফিসগুলোতে গিয়ে শৌচাগার ব্যবহার করতে হয় তাদের। নতুন একটি ভবন নির্মাণের কথা থাকলেও জমি নির্ধারণের জটিলতার কারণে কার্যাআদেশ বাতিল হয়। এখন পরিত্যক্ত এই ভবনের স্থানে নতুন একটি ভবন নির্মাণের প্রচেষ্টা চলছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2023 Somoyexpress.News
Theme Customized By BreakingNews