1. [email protected] : admins :
  2. [email protected] : Kanon Badsha : Kanon Badsha
  3. [email protected] : Nayeem Sajal : Nayeem Sajal
  4. [email protected] : News Editir : News Editir
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১২:৩৭ অপরাহ্ন

জাতীয় পার্টির তালিকা প্রধানমন্ত্রীর হাতে,ফেনী-২ জাতীয় পার্টির প্রার্থী আলোচনা জাফর আহমেদ রাজু

  • আপডেট সময় রবিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ- সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনার সঙ্গে বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর সংসদ বভনের কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বাদ মাগরিব থেকে প্রায় ঘণ্টাখানেক দুজনের মধ্যে এ বৈঠক হয় বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করেছে।বৈঠকে আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থীদের একটি তালিকা হস্তান্তর করেন রওশন এরশাদ।

রওশনের ঘনিষ্ঠ একাধিক সূত্র সাংবাদিকদের জানান,মোট ৯৮ জনের একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনের পরিস্থিতি, বিএনপির অংশ নেওয়া না নেওয়াকে বিবেচনায় রেখে কয়েক ধরনের বিকল্প রাখা হয়েছে। বিএনপি অংশ নিলে এক রকম আর না নিলে কৌশল হবে ভিন্ন। ৯৮ জনের তালিকা ৩ ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে জোটগতভাবে ভোট করবে রওশন এরশাদ। এতে প্রথম ক্যাটাগরিতে ৫০ জনকে জোটের মনোনয়ন দিতে হবে। আর ৫০টি আসন উন্মুক্ত থাকবে। যেভাবে ২০০৮ সালে মহাজোট হয়েছিল। সেখানে বেশকিছু আসন উন্মুক্ত ছিল, যেখানে আওয়ামী লীগ ও জাপার প্রার্থীরা স্ব-স্ব দলীয় প্রতীকে অংশ নেন।

বিএনপি নির্বাচনে না এলে জাপার ৩১ জনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত করতে হবে। আর বাকি ৬৭ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে জাপার প্রার্থীরা। অন্যান্য আসনে গোপনে আওয়ামী লীগের জন্য কাজ করবে জাপা। রওশন এরশাদ তালিকা জমার কিছুদিন পর আরও ১২ জনের একটি সম্পূরক তালিকা দেওয়া হয়। এতে করে সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১০ এ।

রওশনের তালিকা
বেগম রওশন এরশাদ ময়মনসিংহ-৪, রাহগীর আল মাহী সাদ এরশাদ রংপুর-৩, অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম ঢাকা-১৭ অথবা ঢাকা-১, খন্দকার রফিকুল ইসলাম ময়মনসিংহ-৬, এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার পটুয়াখালী-১, ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ চট্টগ্রাম-৫, কাজী ফিরোজ রশীদ ঢাকা-৬, কাজী মো. মামুনূর রশীদ ঢাকা ১৭ অথবা ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৫, আসিফ শাহরিয়ার অথবা মশিউর রহমান রাঙা রংপুর-১, মজিবুল হক চুন্নু কিশোরগঞ্জ-৩, নাসরিন জাহান রত্না বরিশাল-৬, আহসান আদেলুর রহমান আদেল অথবা এন কে আলম নীলফামারী-৪, ড. আক্কাস আলী সরকার কুড়িগ্রাম-৩, ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী অথবা মোস্তফা মহসিন সর্দার গাইবান্ধা-১, এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান কুড়িগ্রাম-১, শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ বগুড়া-২, নুরুল ইসলাম ওমর বগুড়া-৬, রুস্তম আলী ফরাজী পিরোজপুর-৩, গোলাম মোহাম্মদ কাদের অথবা অধ্যাক্ষ মাহবুবুল আলম মিঠু লালমনিরহাট-৩, ফখরুল ইমাম ময়মনসিংহ-৮, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা ঢাকা-৪, লিয়াকত হোসেন খোকা অথবা গোলাম মসীহ্ নারায়ণগঞ্জ-৩, সেলিম ওসমান অথবা পারভীন ওসমান নারায়ণগঞ্জ-৫, পীর ফজলুর রহমান মেজবাহ সুনামগঞ্জ-৫, ইয়াহইয়া চৌধুরী সিলেট-২, সেলিম উদ্দিন সিলেট-৫, আবুল কালাম আজাদ লক্ষীপুর ৪ অথবা ২, নুরুল ইসলাম মিলন কুমিল্লা-৮, আসাদুজ্জামান চৌধুরী (শাবলু) রংপুর-২, ব্যারিস্টার সানজীদ রশীদ চৌধুরী চট্টগ্রাম-৯, মোতাহের হোসেন চৌধুরী রাশেদ ফেনী-১, লে. জে. (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী ফেনী-৩,জাফর আহমেদ রাজু ফেনী-২।

মাসুদ পারভেজ (সোহেল রানা) বরিশাল-২ অথবা ঢাকা ১৮, মুনিম চৌধুরী বাবু হবিগঞ্জ-১, মনজুরুল হক সাচ্চা অথবা ময়নুর রাব্বি চৌধুরী রুম্মন গাইবান্ধা-৩, অ্যাড.জিয়াউল হক মৃধা ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২, আসিফ শাহরিয়ার অথবা পনির উদ্দিন আহমেদ কুড়িগ্রাম-২, মহিবুল কাদের চৌধুরী পিন্টু মৌলভীবাজার ২ অথবা ৪, মো. আবু তালহা নাটোর-১, মিজানুর রহমান মিজান ভোলা-২, আশরাফ-উদ-দৌলা কুড়িগ্রাম-৪, রাজিউর রাজি চৌধুরী স্বপন ঠাকুরগাঁও-১ অথবা ৩, ইঞ্জিনিয়ার ইকরামুল খান ময়মনসিংহ-৭, আজাহার হোসেন সাতক্ষীরা-২, সফিকুল ইসলাম সেন্টু ঢাকা-১৩, মিজানুর রহমান বরগুনা-২, মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী চট্টগ্রাম-১৬, এম মুহিবুর রহমান ঢাকা-১৮, মোস্তফা সেলিম বেঙ্গল লালমনিরহাট-১ অথবা রংপুর-৪, সোলাইমান আলম শেঠ পার্বত্য খাগড়াছড়ি।
জাফর ইকবাল সিদ্দিকী নীলফামারি-১, মো. হাফিজ উদ্দিন আহমেদ ঠাকুরগাঁও-৩, এইচ.এম. গোলাম শহীদ রঞ্জু গাইবান্ধা-৫, ফারুক কাদের রানা মোহাম্মদ সোহেল নীলফামারী-৩, ইঞ্জিনিয়ার মামুনুর রশীদ জামালপুর ৪, মামুনুর রহিম সুমন টাঙ্গাইল-৬, আবুল কাসেম আব্দুস সালাম চাকলাদার টাঙ্গাইল-সদর, মোস্তফা কামাল জাহাঙ্গীর খুলনা ৬, আব্দুল গফফার বিশ্বাস অথবা মোল্লা শওকত হোসেন বাবুল খুলনা-৩, সরোয়ার হোসেন শাহীন অথবা আব্দুর রশিদ সরকার গাইবান্ধা-২, আবু সাঈদ স্বপন নরসিংদী-২, ইকবাল হোসেন রাজু কুমিল্লা-৪, সাব্বির হোসেন জহিরুল হক যশোর-৪, সরদার জুয়েল হোসেন রাজশাহী-২, এড.মাহবুবুল আলম বাচ্চু যশোর -৩, এড. এস এম মাসুদুর রহমান খুলনা-৪, শংকর পাল হবিগঞ্জ-২, জহিরুল ইসলাম জহির অথবা নুরুল হক নুরু টাঙ্গাইল-৭।

সুলতানা চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩, আব্দুস সবুর আসুদ ঢাকা-৫, আবুল কাশেম রিপন জয়পুরহাট-২, মফিজুর রহমান কক্সবাজার-২, মো. ইলিয়াস উদ্দিন শেরপুর-১, মো. নেওয়াজ উদ্দিন ভূঁইয়া নরসিংদী-৪, এনাম জয়নাল আবেদীন টাঙ্গাইল-৮, সৈয়দ দিদার বখত সাতক্ষীরা-১, আলমগীর শিকদার লোটন নারায়ণগঞ্জ-২, এস.এম. ফখর উজ জামান রংপুর-৫, আ.স.ম. মোক্তাদির তিতাস জয়পুরহাট-১,ফারহিন হাসান গাজীপুর-২ অথবা-৫, সাজ্জাদ রশীদ চাঁদপুর-৪, আলাউদ্দিন মৃধা নাটোর-৪, শেখ মো. সিরাজুল ইসলাম মুন্সিগঞ্জ-২, শাহাবুদ্দিন বাচ্চু রাজশাহী-৩, আব্দুস সাত্তার মোড়ল সাতক্ষীরা-৪, মো. মিজানুর রহমান ঝিনাইদহ-সদর, বাচ্চু মন্ডল ঝিনাইদহ-৪, শাহ জামাল রানা পীরজাদা জুবায়ের ব্রাম্মণবাড়িয়া-৩, মোস্তফা আল মাহমুদ জামালপুর-২, জুলফিকার হোসেন দিনাজপুর-২, এমদাদুল হক রুমন চাঁদপুর-১, মোস্তাকুর রহমান মোস্তাক ঢাকা-১৪, জসীমউদ্দিন ভূঁইয়া নেত্রকোনা-৩, মোতাহের হোসেন চৌধুরী রাশেদ ফেনী-১, ওসমান আলী সিলেট-৩, সাফিয়া খাতুন তৌহিদ খান সাতক্ষীরা-৩, নাজমুন নাহার তুলি নরসিংদী-৩, গোলাম সারোয়ার মিলন এম এ মান্নান মানিকগঞ্জ-১, তারেক আহমেদ আদেল ঢাকা-৭ ।

গোলাম কিবরিয়া টিপু বরিশাল-৩, মাহমুদুর রহমান বেলাল হোসেন লক্ষ্মীপুর-১, সালাহ উদ্দিন আহমেদ নোয়াখালী-২, লুৎফর রেজা খোকন কুমিল্লা-৭, মাখন সরকার ইফতেখার হাসান কুমিল্লা-১, মো. নুরুল ইসলাম তালুকদার বগুড়া-৩, সালাহ উদ্দিন মুক্তি ময়মনসিংহ-৩, খন্দকার মনিরুজ্জামান টিটু ফরিদপুর সদর, এ কে এম মর্তুজা আবেদিন বরিশাল-৫ ও শিকদার আলমগীর কবির মাগুরা-১।

প্রসঙ্গত, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ দলে তার ছোটভাই জিএম কাদেরকে কো-চেয়ারম্যান করায় এবং জিয়াউদ্দিন বাবলুকে সরিয়ে রুহুল আমিন হাওলারকে মহাসচিব করায় দলটির অভ্যন্তরে টানাপড়েনের সৃষ্টি হয়। এর ভেতর দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে রওশনের এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হলো।
বিষয়টি নিয়ে জাতীয় পার্টিতে দুই ধারার সৃষ্টি হয়। এরশাদ ও রওশন অনুসারী বলয়ের মধ্যে বেশ কয়েকবার বিবৃতি পাল্টা বিবৃতি দেওয়া হয়। এরশাদ-রওশন পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলনও করেন। জিএম কাদেরকে কো-চেয়ারম্যান ও রুহুল আমিন হাওলাদারকে আইনসিদ্ধভাবে দায়িত্ব দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন রওশন। এদিকে দলটির চেয়ারম্যান এরশাদ দাবি করেন চেয়ারম্যানের ক্ষমতাবলে তিনি দায়িত্ব অর্পন করতে পারেন।

ফেনীর-২ আসনের জাতীয় পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে গুঞ্জন আছে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ এর অত্যন্ত আস্থাভাজন,ফেনী জেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের নুর আহমেদ এর ছেলে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী,সার্কের এক্সিকিউটিভ মেম্বার বাংলাদেশ ও জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য জাফর আহমেদ রাজু।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2023 Somoyexpress.News
Theme Customized By BreakingNews